ফ্রীলেন্সিং কিভাবে শুরু করবেন, ভাবছেন? দেখে নিন গাইডলাইন

ফ্রীলেন্সিং নিয়ে কিছু কথা

আসসালামু আলাইকুম, আশা করি আল্লাহর রহমতে সবাই ভালো আছেন। আজ আমি ফ্রীলেন্সিং নিয়ে কিছু কথা বলার জন্য আপনাদের সামনে হাজির হলাম। আসলে ফ্রীলেন্সিং শব্দটা এখন অপরিচিত কোন নাম নয়। একসময় ছিলো যখন মানুষ ফ্রীলেন্সিং কি জিনিস জানতো না। অনলাইনে যে আয় করা যায় এটা মানুষ ভাবতেই পারে নি। কিন্তু আজ সকলেই অনলাইনে আয়ের কথা, ফ্রীলেন্সিং এর কথা সব কিছুই জেনেছে। সবাই এখন এটা জানে যে অনলাইন থেকে আয়ের একটা মাধ্যম আছে। আর সে মাধ্যমকেই বলা হয় ফ্রীলেন্সিং।

ফ্রীলেন্সিং কেন করবেন?

ফ্রীলেন্সিং আপনি অবশ্যই কিছু আয় করার জন্য করবেন। আর এটাই স্বাভাবিক। ফ্রীলেন্সিং এমন একটা আয়ের মাধ্যম যেটাকে আউটসোর্সিং বলা হয়ে থাকে। এটির মাধ্যমে আপনার যেমন কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে তদ্রুপ দেশের বেকারত্বও হ্রাস পাবে। বর্তমানে অনেকেই এটিকে তাদের মূল পেশা হিসেবে বেছে নিয়েছে।

HOW TO DO FREELANCING?

ফ্রীলেন্সিং কিভাবে করবেনঃ

ফ্রীলেন্সিং কিভাবে করবেন বা কিভাবে শুরু করবেন? এই প্রশ্নটা নতুনদের জন্য ধরে নিতে পারেন হাহাকারের মত কাজ করছে। তাদের মনে প্রচন্ডভাবে যেই জিনিসটা পীড়া দিচ্ছে সেটি হলো যে আমি কিভাবে ফ্রীলেন্সিং শুরু করবো বা আউটসোর্সিং শুরু করবো। তাদেরকে বেসিক কিছু ধারণা দেওয়ার জন্যই আমার আজকের এই পোস্ট।

মানুষ দূর থেকে এই ফ্রীলেন্সিং পেশাটাকে অর্থাৎ অনলাইনে আয়ের পেশাকে যতটা সহজ মনে করছে আসলে এটি ততটা সহজ নয়। যারা আজ এই ফ্রীলেসিং পেশায় নিজেকে সাফল্যমন্ডিত করতে পেরেছে তারা বহু পরিশ্রমের বিনিময়ে এই পর্যন্ত আসতে সক্ষম হয়েছে। আপনি তাদের জীবন পর্যালোচনা করলে দেখতে পারবেন যে তারা দিন রাত হাড়ভাঙ্গা পরিশ্রম করেছেন। সারাক্ষন কম্পিউটার নিয়েই পড়ে থাকতেন। ভালো করে কাজ শিখেছেন তারা। তাদের কারো বছরকে বছর পার হয়ে গেছে সেই স্বপ্নের শিখরে পৌছতে। তাদের এই পরিশ্রমের কারনেই আজ তারা সাফল্যতা অর্জন করতে পেরেছে। আপনার কাছে এখন আমার একটি প্রশ্ন সেটি হচ্ছে আপনি কি পারবেন পরিশ্রম করতে? যদি আপনি পরিশ্রম করে ভালোভাবে কাজ শিখে নিতে পারেন তাহলেই শুধু ফ্রীলেন্সিং আপনার জন্য। আর যারা কাজ না শিখে বা কোনমতে অল্প একটু শিখে ফ্রীলেন্সিং করতে চান তাহলে আমি তাদেরকে বলব কাজ ভালোভাবে না শিখে, ভালো অভিজ্ঞতা অর্জন না করে কোন ফ্রীলেন্সিং মার্কেটে একাউন্ট খুলে নিজের মূল্যবান সময়টুকু নষ্ট করবেন না। কারন কাজ না জেনে আপনি কখনোই ফ্রীলেন্সিং করতে পারবেন না। যদি আপনি কাজ শিখেই কাজ করতে চান তাহলে নিচের লেখাগুলো ভালো করে পড়ে নিন।

WHAT KIND TO DO YOU WANT OF FREELANCING?

কোন ধরনের কাজ করতে চান  আপনি?

আগে আপনি ঠিক করে নেন যে আপনি কি ধরণের কাজ করতে চান ফ্রীলেন্সিং মার্কেটপ্লেসে। সেটা ঠিক করেই কাজ শিখে নেন। ফ্রীলেন্সিং মার্কেটপ্লেসগুলোতে বহু ধরণের কাজ পাওয়া যায়। Web Development থেকে শুরু করে Ms Word, Excel ইত্যাদি সকল ধরণের কাজই এখানে পোস্ট হয়ে থাকে। তবে সবচেয়ে বেশি কাজ পাওয়া যায় Web Development এবং SEO এর উপরে। আপনি চাইলে এখান থেকে যে কোন একটা বা পারলে দুইটাই শিখতে পারেন। তবে Web Depelopment এর কাজটা একটু তুলনামূলক কঠিন। যদি আপনার মেধা শক্তি ভালো হয় বা যদি মনে করেন যে কোডিং করতে পারবেন তাহলে শিখে নিতে পারেন। আমি একটু বিস্তারিত বলার চেষ্টা করছি। কারন নতুনদের মাঝে এসব বিষয় নিয়ে খুবই কনফিউসন থাকতে দেখা যায় যে কি শিখব, কি শিখব, কোথায় থেকে শিখবো ইত্যাদি। তাই আমি একটু বিস্তারিত বলছি কোন কাজটির কোয়ালিটি কি রকম। যাইহোক, যদি আপনি মনে করেন যে আপনি কোডিং জগতে ডুকবেন না অর্থাৎ Web Development শিখবেন না তাহলে আপনি SEO এর কাজটি শিখে নিতে পারেন। এটি সবাই চেষ্টা করলে পারবেন। আর যদি আপনি সবগুলো শিখতে চান তাহলেই প্রথমেই আপনি Web Design শিখুন। তারপর SEO এর কাজটা শিখুন। তারপর চাইলে আপনি Web Development এর দিকে যেতে পারেন। ধাপে ধাপে শিখার চেষ্টা করুন এবং সময় নিয়ে, ধৈর্য নিয়ে শিখার চেষ্টা করুন। আশা করি আপনি সাফল্য অর্জন করতে পারবেন। এই দুইটি কাজ জানা থাকলে আপনি আপনার নিজের জন্যও ওয়েবসাইট তৈরী করে এবং SEO করে আপনার এই ওয়েবসাইট দিয়েই আয় করতে পারবেন। যাই হোক সেদিকে এখন যাচ্ছি না। সুযোগ হলে সেটি নিয়ে আলাদা একটি পোস্ট করব ইনশাআল্লাহ।

কিভাবে শিখবেন?

এখন প্রশ্ন হচ্ছে এই কাজগুলো কিভাবে শিখবেন বা কোথায় শিখবেন। বর্তমান যুগে এখন আর কাজ শিখা নিয়ে তেমন একটা চিন্তা করতে হয় না। কারন সব কিছুই এখন গুগলের সাহায্য নিয়ে শিখা সম্ভব যদি আপনি সঠিক তথ্য খুজে বের করে নিতে পারেন। আর ইউটিউব তোহ আছেই। আপনি সবচাইতে বড় হেল্প পেতে পারেন ইউটিউবের মাধ্যমে। আপনি কী শিখতে চান? যা কিছুই শিখতে চান না কেন তাঁর সবটাই এখন ইউটিউবে পাবেন। সেজন্য আমার সাজেশন হলো যেহেতু কোর্স করে শিখতে প্রচুর টাকার প্রয়োজন সেহেতু আপনি ইনটারনেট থেকে ভিডিও টিটোরিয়াল সংগ্রহ করে শিখে নিতে পারেন। আর সেজন্য আপনি ভালো ফল পেতে পারেন ইউটিউবের মাধ্যমে। ভিডিও টিউটরিয়াল কিনেও শিখে নিতে পারেন। অনেক প্রতিষ্ঠান আছে যারা ভিডিও টিউটোরিয়াল বিক্রি করেন। যেমন আইটি বাড়ি  তাদের মধ্যে অন্যতম। আপনি চাইলে তাদের লিঙ্কে গিয়ে টিউটোরিয়াল কিনে শিখে নিতে পারেন। আর যদি মনে করেন যে না আমি কোন প্রতিষ্ঠানে গিয়ে শিখবো তাও শিখতে পারেন। এগুলো সম্পূর্ণই আপনার ইচ্ছার উপর। আমি শুধু আপনাকে প্রসেসটা বলে দিচ্ছি।

WHERE WILL YOU WORK?

কোথায় কাজ করবেন?

নতুনদের জন্য আরও একটা বড় কনফিউশন হচ্ছে কোথায় কাজ করবো? অনলাইনে বহু মার্কেটপ্লেস আছে যেখানে আপনি আপনার অভিজ্ঞতা নিয়ে কাজ শুরু করতে পারেন। সবচেয়ে পাওয়ারফুল হচ্ছে Upwork, Elance ও  Freelancer. তবে Upwork  ইদানিং বাংলাদেশি প্রোফাইল গ্রহণ করছে না। তারা বলে দিয়েছে যে বাংলাদেশি নতুন ফ্রীলেন্সার তাদের লাগবে না। এখন আপনি একটু চিন্তা করে দেখুন Upwork কেন এমন একটা সিদ্ধান্ত নিল। অবশ্যই বাংলাদেশিদের প্রতি Upwork সন্তুষ্ট হতে পারে নি। কারন নতুনদের কিছু ভুলের কারনেই আজ হয়তো এরকম মাশুল দিতে হচ্ছে নতুন ফ্রীলেন্সারদের। কারন সবারই কাজ শিখে এরকম একটি ১ নম্বর পাওয়ারফুল মার্কেটপ্লেসে কাজ করার ইচ্ছা থাকে। কিন্তু এখন ইচ্ছা থাকলেও সম্ভব হচ্ছে না। তাই বলে কি আমরা কাজ করতে পারবো না? অবশ্যই পারবো। Freelacer.com আপনার জন্য খোলা আছে। Elance এবং Upwork এখন একসাথে কাজ করছে। নিচে আরো কয়েকটি মার্কেটপ্লেসের নাম দেওয়া হলোঃ

Topal, Craigslist, Guru, 99designs, Peopleperhour, GetACoder, iFreelance, Project4hire, SimplyHired etc.

আপনি গুগলে সার্চ দিলে আরো হিউজ পরিমানে কালেকশন করতে পারবেন।

আশা করি নতুনরা ফ্রীলেন্সিং সম্পর্কে কিছুটা হলেও ধারণা পেয়েছেন। আমার বুজাতে গিয়ে যদি কারো মনে কষ্ট এসে থাকে তাহলে অবশ্যই আমাকে ক্ষমা সুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।

Freelancer.com এ কিভাবে একাউন্ট খুলবেন এবং কিভাবে বিড করবেন সেসব বিষয় নিয়ে আলাদা একটি পোস্ট হবে ইনশাআল্লাহ। সেজন্য আমাদের ফেইসবুক পেইজে লাইক দিয়ে রাখুন যাতে করে আমাদের নতুন সকল পোস্টের সন্ধান আপনি পেতে পারেন।

আমদের ফেইসবুক পেইজের লিঙ্ক এখানে

পোস্টটি ভালো লেগে থাকলে অবশ্যই শেয়ার করতে ভুলবেন না। নিজে জানুন এবং অপরকে জানান।

সবাই ভালো থাকবেন, সুস্থ থাকবেন। আল্লাহ হাফেজ।